সহজেই অনলাইন থেকে ইনকাম করার ৫ টি সহজ এবং সফল উপায়

AHK Tech Studio তে আপনাদেরকে আবারো স্বাগতম। আশা করি সবাই ভালোই আছেন। আর ভালো আছেন বলেই আমাদের ব্লগের এই নতুন আর্টিকেলটি পড়তে বসেছেন। আমিও ভালোই আছি। তবে শীত একটু বেশি। তাই বাইরে কোথাও না গিয়ে ভাবলাম আপনাদের একটি আর্টিকেল উপহার দিলে মন্দ হয় না। আর এজন্যই তো লিখতে বসা।

আপনারা যারা নিয়মিত আমাদের ব্লগে আসেন তারা জানেন যে, এর আগে আমি অনলাইন থেকে ইনকাম করার সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং সফল তিনটি মাধ্যম নিয়ে প্রথমে সংক্ষিপ্ত এবং পরবর্তীতে আলাদা আলাদাভাবে বিস্তারিত আলোচনা করেছিলাম। আর সেই মাধ্যম তিনটি ছিলো গুগল এডসেন্স, স্পন্সরশীপ আর এফিলিয়েটিং। তো এই তিনটি ছিলো এমন যে, কিসের মাধ্যমে আপনার ইনকাম হবে। কিন্তু আজ আমি যে বিষয় নিয়ে কথা বলবো সেটা হলো কোথা থেকে আপনি ইনকাম করতে পারবেন। তো বেশি বকবক না করে চলুন মূল আলোচনায় চলে যাই।

মূল আলোচনায় যাওয়ার আগে সবার কাছে আমার রিকুয়েস্ট, যারা আমাদের ব্লগটি এখনো সাবস্ক্রাইব করেন নি তারা এখনি সাবস্ক্রাইব করে দিন আর আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করতে একদমই ভুলবেন না। তাহলে নিত্যনতুন আর্টিকেল আর ভিডিও পেয়ে যাবেন সবার আগে।

আজকে আমি অনলাইন থেকে ইনকাম করার সহজ পাঁচটি পথ বা মাধ্যম সম্পর্কে আপনাদেরকে যতটুকু সম্ভব বুঝিয়ে বলার চেষ্টা করবো। সাথে আছি আমি MD A H Kawsar. আপনারা দেখছেন AHK Tech Studio.

১. YouTube থেকে ইনকামঃ

বর্তমান সময়ে অনলাইনে কাজ করে খুব দ্রুত সময়ে সফলভাবে ইনকাম করার সবচেয়ে বড় এবং সহজ একটি মাধ্যম হলো YouTube. বর্তমান সময়ে বিশ্বের সেরা দশটি ওয়েবসাইটের মধ্যে YouTube একটি। এখানে শুধু ভিডিও আপলোড করার মাধ্যমে আপনি প্রতি মাসে খুব ভালো একটা এমাউন্টের টাকা উপার্জন করে ফেলতে পারবেন। তবে সেজন্য আপনার একটি YouTube Channel থাকতে হবে। আর YouTube Channel খোলার জন্য আপনার একটি Gmail Account লাগবে। আপনি আপনার Gmail ID দিয়ে ইউটিউবে Sign In করে খুব সহজেই একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলে ফেলতে পারবেন। এরপর সেখানে নিয়মিত ভিডিও আপলোড করে একটা সময় গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন। তবে ইউটিউবের বর্তমান নীতিমালা অনুযায়ী আপনি যদি ইউটিউব থেকে গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে ইনকাম করতে চান তাহলে আপনার চ্যানেলে যখন এডসেন্স এর জন্য আবেদন করবেন সেদিন থেকে পিছনের ৩৬৫ দিনে সর্বমোট এক হাজার সাবস্ক্রাইবার আর চার হাজার ঘন্টা ওয়াচটাইম থাকতে হবে।

চিন্তার কিছু নেই। পরবর্তী সময়ে আমি ইউটিউব সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো যাতে আপনি সহজেই একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে পারেন আর সেখান থেকে ইনকাম করতে পারেন। সে পর্যন্ত আমাদের সাথেই থাকুন।

২. ব্লগিং করে ইনকামঃ

আপনি গুগল ব্লগারে কিংবা ওয়ার্ডপ্রেসে বিনা মূল্যে একটি ব্লগ তৈরী করে নিতে পারেন। শুধু ব্লগ তৈরি করে রেখে দিলে হবে না বরং আপনার যে বিষয়ে পরিপূর্ণ জ্ঞান আছে, আপনি সে বিষয় নিয়ে লিখে যান। এ ক্ষেত্রে হয়তো আপনি প্রথম ২-৩ মাস একটু কষ্ট করতে হবে। আর ব্লগ থেকে ইনকাম নিয়ে এর আগেই আমি আরেকটি আর্টিকেল লিখেছি | আপনি চাইলে সেই আর্টিকেলটি পড়ে আসতে পারেন। এতে করে ব্লগ থেকে কিভাবে ইনকাম করা যায় এবং ব্লগিং করতে গেলে কি কি নীতিমালা অনুসরন করতে হয় সে বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারবেন। আর আমি ব্লগিং নিয়ে আমাদের অফিশিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আপনি চাইলে সেই ভিডিওগুলো দেখে আসতে পারেন।

৩. লেখক হয়ে ফ্রিল্যান্সিং করে ইনকামঃ

Freelancing হচ্ছে এমন একটি সাইট যেখানে আপনি আপনার লেখা বা আর্টিকেল শেয়ার করে টাকা উপার্জন করে নিতে পারবেন। আপনি যদি একজন ভাল লেখক হন কিংবা যে কোন বিষয়ে ভাল জ্ঞান রাখেন, তাহলে যদি সে বিষয়ে ভাল মানের আর্টিকেল লিখতে পারেন, তাহলেই এটা আপনার পক্ষে সম্ভব। আপনার লেখার মান যদি ভাল হয় তাহলে Freelancing এ আপনার লেখার মূল্য অর্থাৎ টাকা উপার্জনের পরিমান দিন দিন বাড়তে থাকবে। এখান থেকে মাসে লাখ টাকা উপার্জন করে এমন লোকও আছে। এখানে যার যার মেধা অনুসারে তার প্রতিফলন ঘটাতে পারে।

৪. গুগল এডসেন্স থেকে ইনকামঃ

গুগল এডসেন্স থেকে ইনকাম করার জন্য আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেল বা ব্লগকে ব্যবহার করতে পারেন। ইন্টারনেটে বর্তমানে যতগুলো ইউটিউব চ্যানেল আর ব্লগ বা ওয়েবসাইট রয়েছে সেগুলোর বেশিরভাগ মালিকগনই তাদের ব্লগে বা ইউটিউব চ্যানেলে গুগল এডসেন্স ব্যবহার করে টাকা ইনকাম করেন। আর গুগল এডসেন্স নিয়ে অলরেডি আমি আপনাদেরকে একটি আর্টিকেল উপহার দিয়েছি। তাই এখানে আর বিস্তারিত কিছু বলবো না। আপনি চাইলে আমার পূর্বের আর্টিকেলটি পড়ে আসতে পারেন। তাহলে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জেনে যাবেন। এছাড়া আমাদের অফিশিয়াল ইউটিউব চ্যানেলেও এ বিষয়ে ভিডিও রয়েছে সেখান থেকেও জেনে নিতে পারেন।

৫. AMAZON এর প্রোডাক্ট বিক্রি করে ইনকামঃ

এর আগে আমি আপনাদেরকে এফিলিয়েটিং নিয়ে বিস্তারিত একটি আর্টিকেল উপহার দিয়েছিলাম। সেখানে আমি বলেছিলাম কিভাবে আপনি বিভিন্ন কোম্পানীর প্রোডাক্ট বিক্রি করে ইনকাম করতে পারেন। AMAZON হচ্ছে সেইসকল এফিলিয়েট কোম্পানীগুলোর মধ্যে বিশ্বস্ত একটি কোম্পানী। আপনি এমাজনের ওয়েবসাইটে একটি Affiliate Account খুলে এমাজনের প্রোডাক্ট বিক্রি করে ভালো অংকের টাকা উপার্জন করতে পারেন। আর যদি এফিলিয়েটিং নিয়ে আপনার কোনো ধারনা না থাকে তাহলে আমার এই আর্টিকেলটি পড়ে আসতে পারেন। এফিলিয়েটিং নিয়ে আমি সেখানে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। সেটা পড়লেই আপনার এফিলিয়েটিং সম্পর্কে ধারনা হয়ে যাবে।


শেষ কথাঃ তো এই ছিলো অনলাইন থেকে ইনকাম করার পাঁচটি জনপ্রিয় এবং সফল পথ বা মাধ্যম যেগুলো সম্পর্কে আমি আপনাদেরকে বিস্তারিত বলার চেষ্টা করেছি। এরপরেও যদি কোনোকিছু না বুঝে থাকেন তাহলে আমাদের অফিশিয়াল ইউটিউব চ্যানেল ফলো করতে পারেন। সেখানে আমাদের ব্লগের প্রতিটি পোস্টের ওপর ভিত্তি করে ভিডিও দেয়া হয়েছে। আপনি যদি আমাদের ব্লগের পোস্ট পড়ে কোনকিছু না বুঝে থাকেন তাহলে আমাদের চ্যানেল থেকে সে বিষয়ে ভিডিও দেখে আসতে পারেন। আশা আপনি আপনার সমস্যার সমাধান পেয়ে যাবেন।

তো এই ছিলো আজকের বিস্তারিত আলোচনা। জানি না কতটুকু বুঝাতে পেরেছি বা কতটুকু গুছিয়ে লিখতে পেরেছি। তবে আমি আমার সবটুকু দিয়ে চেষ্টা করেছি আপনাদের বুঝানোর জন্য। যাই হোক, আর্টিকেলটি যদি ভালো লেগে থাকে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। আর আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে একদমই ভুলবেন না। আবার হাজির হবো নতুন কোনো আর্টিকেল নিয়ে। ততক্ষন পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।

"আল্লাহ হাফেজ"

0 Comments